জীবনে চলার পথে আরিফুর রহমানের  বন্ধু এবং বন্ধুত্ব বিষয়ক অভিজ্ঞতা এবং ভাবনা সমূহ নিম্নে তালিকা আকারে প্রকাশ করা হলো।

আরিফুর রহমানের বন্ধুত্ব বিষয়ক উক্তি সমূহ

১. মানুষ যখন বুদ্ধি বিবেকের পরিবর্তে আবেগ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়ে কোন গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে তখনই সে বেশি ভুল করে। তাই বন্ধু নির্বাচন বা ত্যাগে বিবেক বুদ্ধির দ্বারা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা উচিত।

২. সহপাঠী মাত্রই বন্ধু নয়, আবার সব বন্ধু সহপাঠীও হয় না। কারণ সহপাঠী এবং বন্ধু দুটি ভিন্ন ভিন্ন বিষয়।

৩. ধর্মান্ধ জঙ্গীপন্থী বন্ধুর অপেক্ষা বিষাক্ত সাপ উত্তম।

৪. যে বন্ধু তোমাকে বিশ্বাস করে এবং সত্যিকার অর্থে বন্ধু ভাবে সে কখনোই কান কথা শুনে তোমার পিঠে ছুরি চালাবে না।

৫. সুন্দর চেহারা আর সুন্দর মানুষ এক বিষয় নয়। তাই চেহারা দেখে বন্ধু নির্বাচন করা উচিত নয়।

৬. বন্ধুত্বের ভিত্তি হলো বিশ্বাস আর সহপাঠীর ভিত্তি হলো স্কুলের বেঞ্চ। এই স্কুলের বেঞ্চকে ভিত্তি করে কেউ কেউ বন্ধু হয়, কিন্তু সকলের নাম বন্ধু তালিকায় ওঠে না।

৭. অন্ধ বিশ্বাসী উগ্ধ ধার্মিক করোনা ভাইরাসের চেয়েও ক্ষতিকর। যদি সে বন্ধুও হয় তার থেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখো।

৮. বন্ধু নির্বাচনে সচেতন হওয়া উচিত, এবং স্বার্থপর ব্যক্তিদের সাথে বন্ধুত্ব করা কখনো উচিত নয়। কারণ স্বার্থপর ব্যক্তিরা সকলকে আপন স্বার্থেই ব্যবহার করে থাকে।

৯. প্রকৃত বন্ধুত্ব হলো ওয়াইফাই সংযোগের মত, নিদৃষ্ট সীমায় আসলে তা আপনা আপনি সংযোগ প্রাপ্ত হয়।

১০. কাউকে হঠাত করে বন্ধু ভেবে গোপন কথা বলা উচিত নয়, অসময়ে সেই কথা সে তোমাকে ঘায়েল করতেই ব্যবহার করবে।

১১. প্রকৃত বন্ধুর পরিচয় বিপদে মেলে, সুসময়ে যে সকল ব্যক্তি বন্ধুত্ব করতে আসে, তাদের অধিকাংশই আপন স্বার্থে আসে।

১২. শৈশবে যে প্রিয় বন্ধু ছিলো না, বয়স্ককালে এসে যদি সে প্রিয় বন্ধু হওয়ার চেস্টা করে তখন বুঝতে হবে তার মাঝে স্বার্থ লুকিয়ে আছে।

১৩. ঋতু বদলের সাথে সাথে যেমন প্রকৃতির রঙ বদলায়, অনুরূপ সময়ের সাথে সাথে বন্ধুতেরও রূপ বদলায়।

১৪. উগ্র ধার্মীকের ধর্মীয় অনুভূতির কাছে বন্ধুত্ব অতি তুচ্ছ। তার কাছে ধর্মীয় অনুভূতি রক্ষায় বন্ধুত্ব বিসর্জনের বস্তু।

১৬. অধিকাংশ শত্রুতা বন্ধুত্ব থেকেই হয়, তাই কাউকে বন্ধু ভেবে স্পর্শকাতর গোপন বিষয় জানানোর পূর্বে দ্বিতীয়বার ভাবা উচিত।

১৭. যার শুরু আছে তার শেষ আছে, বন্ধুত্ব এর ব্যতিক্রম নয়।