২০১৫ সালের নভেম্বর মাসের শেষের দিকে উত্তর নরওয়েতে গিয়েছিলাম একটি সংস্থার আমন্ত্রণে।
তখন প্রচন্ড ঠান্ডা, মাইনাস ৩০ ডিগ্রির মতো ঠান্ডা। সংস্থার আমন্ত্রণে রাশিয়ান এক কমিক আর্টিস্টও এসেছিলেন। সারা বিকেল তিনি এবং আমি প্রচন্ড ঠান্ডা আর তুষারের মাঝে ঘুরে বেড়ালাম, এক পাহাড় থেকে অন্য পাহাড়ে। 
রাতের খাওয়ার পর সংস্থার একজন জানালেন যে আজ আকাশে উত্তরের আলো দেখা যাচ্ছে, দেখতে চাইলে বাইরে আসতে পারেন। উত্তরে এলাম আর উত্তরের আলো দেখবো না তাই কি কখনো হয়? আমি আর রাশিয়ান যুবতী রাত দশটার দিকে বের হলাম উত্তরের আলো দেখবো বলে। প্রচন্ড ঠান্ডা আর বরফ জমে রাস্তা পিচ্ছিল হয়েছিল আমরা সাবধানে হাটতে হাটতে সাগর তীরে গিয়ে আকাশের দিকে তীর্থের কাকের মতো তাকিয়ে রইলাম আধা ঘন্টার মতো, ঠান্ডায় আমরা যেন জমে যাচ্ছিলাম এমন অবস্থা প্রায়। এরপর হঠাৎ আকাশে দেখা মেললো উত্তরের আলো। প্রায় দশ মিনিট পর সবুজ রঙের আলোর আভা আঁধারে মিলিয়ে গেলো আর আমরা হোটেলে ফিরে এলাম।

আরিফুর রহমান,
নরওয়ে